November 17, 2019, 1:48 pm

নোটিশ
ব্রাহ্মণবাড়িয়া নিউজ ২৪ ডটকম এ আপনাদেরকে স্বাগতম:: ব্রাহ্মণবাড়িয়া নিউজ ২৪ ডটকম এ প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন, যোগাযোগ- মোঃ নাজিম উল্লাহ নাজু, সম্পাদক ও প্রকাশক, ব্রাহ্মণবাড়িয়া নিউজ ২৪ ডটকম, কাজীপাড়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়া। মোবাইলঃ 01732877149, নির্বাহী সম্পাদক, আরাফাত আহমেদ, মোবাইলঃ 01916608000
সংবাদ শিরোনাম
প্রথম শ্রেণীতে পড়ুয়া ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা, শিক্ষিকার স্বামী আটক মালয়েশিয়ায় কারাবন্দী আখাউড়ার এক প্রবাসীর জীবন সঙ্কটাপন্ন, জীবিত ফেরতের দাবি পরিবারের বিজয়নগরে সত্তরোর্ধ এক বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নতুন এক্সপ্রেস ট্রেন এবং ২ ট্রেনের যাত্রা বিরতির দাবীতে মানববন্ধন আজমপুরে ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে মাদকাসক্ত যুবতীর মৃত্যু বাবরি মসজিদ নিয়ে ভারতের ষড়যন্ত্র বন্ধ না হলে বিশ্বের মুসলমানরা কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হবে- হেফাজতে ইসলাম ব্রাহ্মণবাড়িয়া মন্দবাগ ট্রেন দুর্ঘটনায় বিভাগীয় তদন্ত প্রতিবেদন জমা ডাঃ ডিউক পলাতক, দিয়ার মরদেহ কবর থেকে উত্তোলন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বাক প্রতিবন্ধি যুবক কে পিটিয়ে হত্যা  বিজয়নগরে ফেন্সিডিল-স্কাফসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক
শ্যালিকাকে ধর্ষণের পর হত্যায় অভিযুক্ত নাঈম আটক, নাঈমের পিতার আত্মহত্যা

শ্যালিকাকে ধর্ষণের পর হত্যায় অভিযুক্ত নাঈম আটক, নাঈমের পিতার আত্মহত্যা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া নিউজঃ শনিবার (২২ জুন) ভোরে সদর উপজেলার অষ্টগ্রাম এলাকায় অভিযান চালিয়ে শ্যালিকাকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত দুলাভাই নাঈম ইসলামকে (২৭) আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদর ও বিজয়নগর সার্কেলের অতিরিক্তি পুলিশ সুপার রেজাউল কবির  জানান, নিহত তামান্না আক্তারের মায়ের দেয়া অভিযোগের ভিত্তিতে গোপন সংবাদের মাধ্যমে নাঈমের মামার বাড়ি থেকে তাকে আটক করা হয়।

তিনি আরো জানান, মামলার তদন্ত কার্যক্রম চলছে। ডিএনএ পরীক্ষার পর নাঈমের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত অভিযোগ দেওয়া যাবে।

গত বৃহস্পতিবার (২০ জুন) ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার নাঈম ইসলামের বাড়ি থেকে তামান্না আক্তারের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এদিকে ছেলের অপকর্ম সইতে না পেরে  নাঈমের বাবা বসু মিয়া আজ সকালে আত্মহত্যা করেছেন।

আজ শনিবার সকাল ১০টার দিকে নবীনগর  উপজেলার গোসাইপুর গ্রামে গাছের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নবীনগর থানার পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) রাজু আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ছেলের ধর্ষণের ঘটনায় মামলা হওয়ার ভয়ে বসু মিয়া বাড়ি ছেড়ে গোসাইপুর গ্রামে তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে চলে আসেন। ঘটনাটি নিয়ে তিনি হতাশায় ভুগছিলেন।

 

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 Copyright @ brahmanbarianews24.com